THE GRE TEST: NOT AS SCARY AS YOU THINK

THE GRE TEST: NOT AS SCARY AS YOU THINK

The GRE has test centres at various institutions across the country, such as the American Alumni Association, among others. Personally, I found it easier to register on the ETS website (www.ets.org), which lets you pay the USD 205 registration fee directly to the board, choose your test date and location, order five score reports to be directly sent to universities for free, and access practice resources. Extra score reports can also be ordered for USD 27 per copy. Closer to the exam date, the ETS sends email reminders with detailed instructions on what to expect and what to bring to the test venue.

Most American graduate programmes ask for the GRE General Test; graduate business programmes especially. More competitive universities may even ask for subject specific GRE tests, which are understandably a lot more comprehensive and challenging.

The GRE General Test is comprised of three parts – the Analytical, the Verbal, and the Quantitative sections. The Analytical section is basically an essay writing exercise with particular focus on the argumentative format. The two questions – one an ‘Issue’ test and the other an ‘Argument’ test – provide a short statement or passage in the form of a speech, an advertisement, or a claim; they prompt the test-taker to write a passage in response. You have to discuss, agree or disagree with the provided statements, explaining your stand with sound reasoning. The more well-developed and specific your arguments are to each point made by the prompt, the better. A neat format goes a long way in scoring higher marks on the essay – a brief introductory paragraph with a topic sentence addressing each point, separate paragraphs for each argument, and a concise or even thought-provoking conclusion. Needless to say, it’s imperative to check for typos, spelling errors, and general editing within the allotted 30 minutes for each question. The ETS web pages for GRE exams (www.ets.org/gre) have several sample prompts and marking schemes available for practice.

Since the Analytical part is the first exercise on the test, you’re coming to it with a fresh mind. This means that you’re able to think faster and with more focus, ideally resulting in better answers. It’s also advisable to plan out your response by jotting down your arguments in bullet points on the scratch paper provided by the test centre. This frees you up from having to think of arguments as you write; all you have to do is take each point on your scratch paper and build on it.

This is followed by the Quantitative or the Verbal section, which may appear in any order.

GRE math is tricky. Not necessarily because it’s hard, but because it comprises of Algebra, Arithmetic, Geometry and Data Analysis – things that you’ve long left behind in your high school days; what appears to be easy at first soon becomes annoyingly tiresome, because you’ll feel like you should be able to answer these questions. Rafidah Rahman, an NSU student who is currently preparing for the exam at the GRE Centre in Banani, points out, “Even though GRE comprises of basic maths, most of us have significant gaps in our knowledge of it. Before jumping into the advanced books, my advice would be to go through the Manhattan 1-6 GRE textbook, which highlights the major discussions and problems to help sharpen your basics.” Following YouTube channels to brush up on basic mathematical concepts will also prove to be very helpful.

The elements that can make the Quantitative section hard are the computer format of the test and the 30-35 minutes allotted for each set of 20 questions. Most of us aren’t great at using an online calculator, so it might impede the pace with which you solve the problems. It’s therefore better to use it for particularly challenging calculations such as long division or difficult multiplications, instead of something as simple as 20 x 100. Again, it’s important to treat each question as a word problem and jot down the points on the scratch paper, no matter how easy it might seem at first. It’s also helpful to remember a rule of thumb – in all the questions, all numbers are real numbers, coordinate systems and graphical data such as graphs and pie charts are drawn to scale, and geometric figures are not drawn to scale.

“I found the Verbal part of GRE easier to prepare for, but actually it was much harder for me to score well in the Verbal part compared to the Quantitative,” says Tauhid Irteza Ali, a recent Economics graduate who sat for the GRE test in December 2016. This is because the Verbal Reasoning section consists of questions on sentence equivalence, text completion, and reading completion that tests you on your knowledge of advanced vocabulary and logical reasoning. Unlike math exercises, this isn’t something you can master in a matter of weeks. Training centres suggest reading English-language books and newspapers to build a mature vocabulary, but it should ideally be an organic process over a longer period of time, instead of trying to memorise difficult words one week before the exam. You might want to keep in mind that reading comprehension in this case is more challenging than those in O Level English exams, so it’s advisable to practise sufficiently using the test materials online or practice books found at most bookstores in Dhaka. A textbook called ‘WordSmart’ is useful for practicing the Verbal Reasoning section, while ‘Cracking the GRE’ by the Princeton Review has particularly useful tips on preparing for the overall test, with a large number of both Quantitative and Verbal Reasoning exercises.

Rafidah, when asked about the kind of preparation she’s putting in for the test, explains, “GRE might seem complicated if you look at the never-ending syllabus, but the trick is to deal with it one step at a time. Instead of piling on the work load, give it at least two hours of your time every day, and you’ll be fine.” Meanwhile, Tauhid addresses an interesting aspect: “In the end, it depends on the programme one is applying to. A maths-oriented programme like Engineering or Economics prioritises the Quantitative score of the GRE more than the overall score. So before starting the preparation, it’s necessary to understand the programme requirements, and then stress more on that component of the GRE.”

Finally, the biggest consolation lies in the fact that the computer-based GRE in particular is designed specifically to suit the test-takers’ levels of competency – the questions start out easier, and they only get more difficult according to the pattern of answers you plug in. This, in addition to the alternate turns with which the Quantitative and Verbal sections appear, allows you to take a break from each kind of question (math or logical) in between sections.

The ETS allows you to take the test again within a certain period of time and choose which of your scores you send to universities. Even if you don’t have time to take the test more than once before your graduate application deadlines, putting in some basic preparation for the GRE test can help make the test easy to a great extent. Fear not.

Source: The Daily Star

Higher Study in Greece

গ্রিস (অফিসিয়াল নাম Hellenic Republic) ইউরোপের একটি মধ্যম আয়ের সেঞ্জেনভুক্ত দেশ। ঐতিহাসিকভাবে দেশটি Hellas নামেও পরিচিত যা ইউরোপের দক্ষিণ – পূর্বে অবস্থিত, জনসংখ্যা ১১,১৮৩,৭১৬ (২০১৬ অনুসারে) এবং দেশটিতে মুদ্রা হিসেবে ইউরো ব্যবহৃত হয়। গ্রিসের রাজধানী এথেন্স। গ্রিসের আয়তন ১৩১,৯৫৭ বর্গ কিঃমিঃ, অফিসিয়াল ভাষা গ্রীক। গ্রিসের আশেপাশের দেশগুলো হচ্ছে আলবেনিয়া, মেসিডোনিয়া, বুলগেরিয়া ও তুরস্ক।

শিক্ষা ও গবেষণাঃ 

গ্রিসের শিক্ষার মান বেশ ভালো এবং গ্রীক ডিগ্রি বিশ্বে সমভাবে সমাদৃত। গবেষণার দিক থেকেও পিছিয়ে নেই গ্রিস। আমরা অনেকেই জানি, বিজ্ঞানের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখা অনেক বিজ্ঞানীর জন্ম এই গ্রিসেই। দেশটিতে কিছু বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে।

কিছু বিখ্যাত ইউনিভার্সিটি

১। National and Kapodistrian University of Athens

২। Aristotle University of Thessaloniki

৩। National Technical University of Athens

৪। University of Patras (incl University of Western Greece)

৫। University of Crete

৬। University of Ioannina

বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদনের যোগ্যতা, সময় ও প্রক্রিয়াঃ 

গ্রিসে প্রায় সব বিষয়ে পড়ার সুযোগ আছে। সাধারণত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পড়ার মাধ্যম গ্রীক এবং ইংরেজি। সাধারণত জুন, জুলাই – সেপ্টেম্বর এর দিকে বিদেশী শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আবেদন করতে পারে। তবে সময় প্রোগ্রাম ও বিশ্ববিদ্যালয়ভেদে ভিন্ন হতে পারে।

ভর্তির প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস

  • পূরণকৃত অনলাইন/অফলাইন অ্যাপ্লিকেশান ফর্ম (ইলেক্ট্রনিক অ্যাপ্লিকেশান, এখানে দেখুনঃ http://exams-foreigner.it.minedu.gov.gr )
  • এসএসসি – ট্রান্সক্রিপ্ট ও সার্টিফিকেট (যদি চায়)
  • এইচএসসি ও এসএসসি – ট্রান্সক্রিপ্ট ও সার্টিফিকেট
  • ব্যাচেলর – ট্রান্সক্রিপ্ট ও সার্টিফিকেট (মাস্টার্স এর জন্য)
  • মাস্টার্স – ট্রান্সক্রিপ্ট ও সার্টিফিকেট (পিএইচডি এর জন্য, যদি চায়)
  • ল্যাঙ্গুয়েজ প্রফিসিয়েন্সি সার্টিফিকেট (আইইএলটিএস/টুএফেল)
  • পাসপোর্ট কপি
  • আইডি কার্ড কপি
  • মোটিভেশন লেটার (যদি চায়)
  • সিভি (যদি চায়)
  • কাজের অভিজ্ঞতার সনদপত্র (যদি চায়)
  • গবেষণাপত্র/রিসার্চ পেপার (যদি চায়)
  • অ্যাপ্লিকেশান ফি পরিশোধের রশিদ (যদি চায়)
বিঃদ্রঃ ডকুমেন্টস চেকলিস্ট বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রোগ্রামভেদে ভিন্ন হতে পারে। তাই, উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট চেক করুন।

সবগুলো ডকুমেন্টস নিম্নোক্ত ঠিকানায় পাঠাতে হবেঃ 

MINISTRY OF EDUCATION, RESEARCH AND RELIGIOUS AFFAIRS

«DIRECTORATE OF EXAMINATIONS AND VERIFICATIONS»

DPT. Α΄ off. 0091,

37, A. Papandreou P.C.. 15180, Maroussi – Athens, Greece

for the attention of:

The committee in charge of collecting and checking Application-Entry Forms 
from Foreigners of non-Greek origin for the year 2016

 

যে কোন প্রক্রিয়া শুরু করার আগে অবশ্যই উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট থেকে ভালো করে সকল তথ্য দেখে ও বুঝে নিবেন। 

টিউশন ফিঃ গ্রিসের সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ব্যাচেলর লেভেলে সাধারণত টিউশন ফি দিতে হয় না। তবে এটা নির্ভর করবে প্রোগ্রাম/বিশ্ববিদ্যালয় এর উপর।

স্কলারশিপঃ এখানে দেখুন – http://www.studyingreece.edu.gr/Studying/Find/Scholarships.aspx

ভিসা সংক্রান্ত তথ্যঃ

বাংলাদেশে গ্রিস এমব্যাসি না থাকায় আপনাকে পাশের দেশ ভারত যেতে হবে। আরও বিস্তারিত জানুনঃ http://www.mfa.gr/en/visas/

প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস 

  • ভিসা/রেসিডেন্স পারমিট অ্যাপ্লিকেশান ফর্ম (ডাউনলোড এখানেঃ ভিসা ফরম)
  • ইউনিভার্সিটির অফার লেটার
  • সকল একাডেমিক ডকুমেন্টস (সত্যায়িত, বিস্তারিতঃ গুরুত্বপূর্ণ তথ্য)
  • বৈধ পাসপোর্ট
  • ছবি
  • ট্র্যাভেল মেডিকেল ইন্স্যুরেন্স
  • আর্থিক সচ্ছলতার প্রমাণাদি
  • স্পন্সরের যাবতীয় ডকুমেন্টস

ভিসা সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য এখানে দেখুনঃ http://www.mfa.gr/en/visas/

পার্ট টাইম জব ও থাকা-খাওয়ার খরচঃ

গ্রিসে পড়াশোনাকালীন পার্ট – টাইম কাজের অনুমতি আছে। কাজের সুবিধা তেমন ভাল না। কাজ পেলেও সেটা দিয়ে নিজের খরচ চালাতে পারলেও টিউশন ফি ব্যবস্থা করতে পারবেন না। তাই, কাজ করে সব দেওয়ার চিন্তা থাকলে গ্রিস পছন্দ না করাই ভাল। আর কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে বরাবরের মতই ভাষা একটা বড় ফ্যাক্ট। গ্রীক ভাষা জানা থাকলে সুবিধা পাবেন।

স্থায়ী বসবাস ও নাগরিকত্বঃ

একটানা ৫ বছর থাকার পর পিআর এবং ১০ বছর থাকার পর নাগরিকত্ব এর জন্য আবেদন করতে পারবেন। সাথে অবশ্য আরও কিছু যোগ্যতা থাকতে হবে।
গ্রীক এমব্যাসি নয়াদিল্লী, ভারতঃ http://www.mfa.gr/missionsabroad/en/india.html
Reference: